বিশ্ব পরিবেশ দিবস ২০১৮ || থিম, ইতিহাস, স্লোগান || জানুন অজানা তথ্য

এখান থেকে শেয়ার করুন
  • 250
    Shares

বিশ্ব পরিবেশ দিবস ২০১৮ (World Environment Day 2018)

World Environment Day 2018
World Environment Day 2018

পরিবেশ দূষণের হাত থেকে এ বিশ্বকে বাঁচানোর অঙ্গীকার নিয়ে জনসচেতনতার মাধ্যমে পরিবেশ সচেতনতার লক্ষ্যে প্রতিবছর ৫ জুন দিবসটি বিশ্ব পরিবেশ দিবস ( বিশ্ব পরিবেশ দিবস ২০১৮ ) হিসাবে পালিত হয়ে আসছে।

♠ সরকারি নাম কী

জাতিসংঘ বিশ্ব পরিবেশ দিবস বা United Nation World Environment Day

♠ অন্যান্য নামগুলি কী কী?

ইকো দিবস, বিশ্ব পরিবেশ দিবস, World Environment Day

[আরও পড়ুন- ভারতের সকল রাজ্যের নামকরণের অর্থ গুলি জেনে নিন]

♠ কবে বিশ্ব পরিবেশ দিবস পালন করা হয়?

প্রতিবছরের জুন মাসের ৫ তারিখে বিশ্ব পরিবেশ দিবস পালন করা হয়।

♠ প্রথম বিশ্ব পরিবেস দিবস পালিত হয় কবে?

প্রথম বিশ্ব পরিবেস দিবস পালিত হয় জুন ৫, ১৯৭৪

বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষে "সুদর্শন পট্টনায়েকের" দ্বারা তৈরি 'সেন্ড আর্ট'
বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষে “সুদর্শন পট্টনায়েকের” দ্বারা তৈরি ‘স্যান্ড আর্ট’

♠ বিশ্ব পরিবেশ দিবস ২০১৮ আয়োজক দেশ কে?

বিশ্ব পরিবেশ দিবস ২০১৮ আয়োজক করছে ‘ভারত’

“India will be a great global host of 2018’s World Environment Day celebrations,” said Erik Solheim

[আরও পড়ুন- ভারতের ৩৬টি ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইটের বিস্তারিত তথ্য জানুন]

♠ বিশ্ব পরিবেশ দিবস পালনের তাৎপর্য কী?

বর্তমান বিশ্ব বিভিন্ন পরিবেশগত সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে। দিবসটি বিশ্বের বা একটি নির্দিষ্ট দেশের সম্মুখীন পরিবেশগত সমস্যা সম্পর্কে বিশ্বব্যাপী সচেতনতা সৃষ্টি করতে পালন করা হয়।

♠ বিশ্ব পরিবেশ দিবসের ইতিহাস-

বিশ্ব পরিবেশ দিবসের ইতিহাস জানতে হলে ২০ মে ১৯৬৮ সালের দিনটির কথা তুলে আনতে হবে। প্রকৃতি ও পরিবেশ দূষণ সম্পর্কে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে ওই দিন সুইডেন সরকার ‘জাতিসংঘের অর্থনীতি ও সামাজিক পরিষদের’ কাছে একটি চিঠি পাঠায়। জাতিসংঘের পক্ষ থেকে পরিবেশ রক্ষার বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা এবং সমাধানের উপায় খুঁজতে সদস্যরাষ্ট্রগুলোর সম্মতিতে সুইডেনের রাজধানী স্টকহোমে ১৯৭২ সালের ৫ থেকে ১৬ জুন পর্যন্ত “জাতিসংঘের মানবিক পরিবেশ কনফারেন্স” (United Nations Conference on the Human Environment) অনুষ্ঠিত হয়।

এরপর ১৯৭৩ সালে ৫ জুনকে জাতিসংঘ ‘বিশ্ব পরিবেশ দিবস’ হিসেবে ঘোষণা দেয়। এবং ১৯৭৪ সাল থেকে প্রতিবছর দিবসটি বিশ্বব্যাপী “বিশ্ব পরিবেশ দিবস” হিসাবে পালিত হয়ে আসছে।

➧১৯৭৩ সালের প্রথম বিশ্ব পরিবেশ দিবসের থিম কি ছিল-

১৯৭৩ সালের প্রথম বিশ্ব পরিবেশ দিবসের থিম ছিল – “Only one Earth”

[আরও পড়ুন- ভারতের সম্পর্কে ২২টি অজানা তথ্য]

♠ ২০১৮ সালে বিশ্ব পরিবেশ দিবসের থিম কি?

বিশ্ব পরিবেশ দিবস ২০১৮ এর থিম হল- “Beat Plastic Pollution”। ২০১৮ সালে প্লাস্টিক-দূষণ বন্ধের আহ্বানে ‘বিট প্লাস্টিক পলিউশন’ প্রতিপাদ্য নিয়ে সারাবিশ্বে দিবসটি পালিত হবে।

বর্তমান দিনের একটি বাস্তবিক চিত্র
বর্তমান দিনের একটি বাস্তবিক চিত্র

♠ ২০১৮ সালের বিশ্ব পরিবেশ দিবসের থিম চয়নের তাৎপর্য কী?

বর্তমান দিনে অন্যান্য দুষণ গুলির মধ্যে প্লাস্টিক দূষণ একটি ক্ষতিকারক প্রভাব ফেলতে শুরু করেছে।  কয়েকটি উদাহরণ দিলেই আপনারা বুঝতে পারবেন-

১. বিগত কয়েক শতকের মধ্যে এই শতকে সবচেয়ে বেশি প্লাস্টিক দূষণ ঘটছে।

২. প্রায় ৫০% প্লাস্টিক দ্রব্য মানুষ মাত্র একবারের জন্য ব্যবহার করে, তারপর ছুড়ে ফেলে দেয়।

৩. বছরে যত পরিমাণ প্লাস্টিক ছুড়ে ফেলা হয়, সেগুলিকে একত্রিত করলে, আমাদের পৃথিবীকে চার বার আবর্তিত করে ফেলা যাবে!

৪. বর্তমানে আমরা যত পরিমাণ প্লাস্টিক  ব্যবহার করি তার মধ্যে মাত্র ৫% প্লাস্টিক কে পূনঃর্নবিকরণ করতে পারি বা সামর্থ রয়েছে।

[আরও পড়ুন- বিশ্ব ধরিত্রী দিবস সম্পর্কে জানুন]

৫. আমেরিকা একাই বার্ষিক হিসাবে প্রায় ১৮৫ পাউন্ড প্লাস্টিক বাতিক করে।

৬. আমেরিকা বছরে প্রায় ৩৫ বিলিয়ন প্লাস্টিকের বটল ছুড়ে ফেলে।

৭. আমাদের শরীর প্লাস্টিকের রাসায়নিক শোষণ করে, যেটা খুবি মারাত্মক।

৮. প্লাস্টিকের অসংখ্য মাইক্রোস্কোপিক কণা আছে যা আমরা অজ্ঞাতসারে খাই!

৯. প্লাস্টিক আহারের কারণে প্রতিবছর প্রায় এক মিলিয়ন সমুদ্র পাখি এবং ১০০,০০০ সামুদ্রিক স্তন্যপায়ী প্রাণঘাতী হয়।

১০. এক বছরে প্রায় ৫০০ বিলিয়ন প্লাস্টিকের ব্যাগ বিশ্বব্যাপী ব্যবহৃত হয়।

১১. বিশ্বব্যাপী, মাছ জীবিদের দ্বারা প্রতি বছর ১৫০,০০০ টন প্লাস্টিকের টুকরো সমুদ্রের মধ্যে ফেলা হয় এবং যার ফলে সমুদ্র দূষণ ঘটে।

প্লাস্টিক কিভাবে সমুদ্র দূষণ করছে তার একটি চিত্র
প্লাস্টিক কিভাবে সমুদ্র দূষণ করছে তার একটি চিত্র

১২. প্লাস্টিক বোতল তৈরি করতে বার্ষিক ৭২ বিলিয়ন গ্যালন জল প্রয়োজন হয়।

১৩. এক বিলিয়ন প্লাস্টিক বোতল উত্পাদন করার জন্য 24 মিলিয়ন গ্যালন তেল প্রয়োজন।

১৪. সামুদ্রিক প্লাস্টিকের দূষণের প্রায় ৮০% ভূমি থেকে আসে।

১৫. একটা জল খাওয়ার মগের মত প্লাস্টিকের দ্রব্যের প্রকৃত বিক্রিয়া ঘটতে প্রায় ১ মিলিয়ন বছর সময় লাগে

এই চিত্র দেখার পরও কি আমরা সতর্ক হবনা?
এই চিত্র দেখার পরও কি আমরা সতর্ক হবনা?

ওপরের ১৫টি পয়েন্ট পড়ার পর আপনারা নিশ্চই বুঝতে পারছেন বর্তমান দিনে অন্যান্য ক্ষতিকারক প্রভাব গুলির মধ্যে প্লাস্টিক দূষণ অন্যতম শীর্ষ তালিকাতে থাকবে। তাই আমরা এখনি যদি সতর্ক না হই তাহলে এর পরবর্তী কালে অনেক দেরি হয়ে যাবে। আসুন সকলকে সতর্ক করতে প্রচার শুরু করি। এক দুই তিন করে বৃদ্ধি পেতে পেতে এক সময় আমাদের সদস্য সংখ্যা কয়েক হাজার বা লক্ষে পৌঁছাবে। তাই আর না ভেবে আসুন আমাদের পরিবেশকে রক্ষা করতে নিজেরা সতর্ক হই এবং সকলকে সতর্ক করতে তৎপর হই।

আমাদের পৃথিবীকে এরূপ করুণ অবস্থার হাত থেকে বাঁচাতে পারি একমাত্র আমরা নিজেরাই
আমাদের পৃথিবীকে এরূপ করুণ অবস্থার হাত থেকে বাঁচাতে পারি একমাত্র আমরা নিজেরাই

➽ বিগত কয়েক বছরের বিশ্ব পরিবেশ দিবসের থিম-

১. ২০১৭ সালের থিম ছিল-“Connecting People to Nature”

২. ২০১৬ সালের থিম ছিল-“Zero tolerance for the illegal trade in wildlife”।

৩. ২০১৫ সালের থিম ছিল-“One World, One Environment”

৪. ২০১৪ সালের থিম ছিল-“small island developing states”

৫. ২০১৩ সালের থিম ছিল-“Think. Eat. Save.”

৬. ২০১২ সালের থিম ছিল-“Green Economy: Does it include you?”

৭.  ২০১১ সালের থিম ছিল-“Forests: Nature at your Service”

৮. ২০১০ সালের থিম ছিল-“Many Species. One Planet. One Future”.

➽বিশ্ব পরিবেশ দিবস সম্পর্কে কয়েকটি উদ্ধৃতি দেখেনিন-

১. “The environment is everything that isn’t me”. – Albert Einstein

২. “God has cared for these trees, saved them from drought, disease, avalanches, and a thousand tempests and floods. But he cannot save them from fools”. – John Muir।

৩. “Thank God men cannot fly, and lay waste the sky as well as the earth”. – Henry David Thoreau

৪. “Never doubt that a small group of thoughtful, committed citizens can change the world; indeed, it’s the only thing that ever has”. – Margaret Mead

৫. “We won’t have a society if we destroy the environment”. – Margaret Mead

৬. “It is horrifying that we have to fight our own government to save the environment”. – Ansel Adams।

৭. “I think the environment should be put in the category of our national security. Defense of our resources is just as important as defense abroad. Otherwise what is there to defend”? – Robert Redford

৮. “Take a course in good water and air, and in the eternal youth of Nature, you may renew your own. Go quietly, alone; no harm will befall you”. – John Muir।

৯. “Birds are indicators of the environment. If they are in trouble, we know we’ll soon be in trouble”. – Roger Tory Peterson

১০. “By polluting clear water with slime you will never find good drinking water”. – Aeschylus

এখান থেকে শেয়ার করুন
  • 250
    Shares
error: স্টুডেন্টস কেয়ার কতৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত !!